ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় বিভিন্ন ষ্টল ঘুরে দেখছে দর্শনার্থীরা

আগের সংবাদ

তামান্নাকে জুতা ছুঁড়ে মারলেন ভক্ত

পরের সংবাদ

গাঁজা-ফেনসিডিলের অনুপ্রবেশ নিয়ন্ত্রণ পিবিআইকে হাইকোর্টের নির্দেশ

প্রকাশিত হয়েছে: জানুয়ারি ২৯, ২০১৮ , ৬:৫৬ অপরাহ্ণ | আপডেট: জানুয়ারি ২৯, ২০১৮, ৬:৫৭ অপরাহ্ণ

সীমান্ত দিয়ে মাদক, বিশেষ করে গাঁজা ও ফেনসিডিলের অনুপ্রবেশ নিয়ন্ত্রণ তথা অনুসন্ধান ও ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

একটি জাতীয় দৈনিকে এ বিষয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদন আমলে নিয়ে আজ সোমবার স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

সীমান্তবর্তী জেলা কক্সবাজার ও বান্দরবানে অগ্রাধিকারভিত্তিতে এই আদেশ প্রতিপালন করতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে সব ধরনের অবৈধ মাদকদ্রব্য পরিবহন, বিপণন ও অবৈধ সেবনের বিরুদ্ধে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সব জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও পুলিশ সুপারকে (এসপি) অবহিত করতে স্বরাষ্ট্র সচিব ও পুলিশের মহাপরিদর্শকের (আইজিপি) প্রতি নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এক মাসের মধ্যে পিবিআইকে অগ্রগতি জানিয়ে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। পরবর্তী আদেশের জন্য ১ মার্চ বিষয়টি আবারও আদালতের কার্যতালিকায় আসবে।

আদেশে বলা হয়, “ইয়াবার গ্রামে কোটিপতি বাসিন্দা’ শীর্ষক প্রতিবেদন ও তৎসংশ্লিষ্ট গণমাধ্যমে আসা খবর অনুসারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য পরিবহন, বিপণন ও অবৈধভাবে বাজারজাতকরণ রোধে ব্যর্থ বলে প্রতীয়মান হয়। সোমবারের প্রতিবেদন ও গণমাধ্যমে আসা তৎসংশ্লিষ্ট প্রতিবেদনে প্রতীয়মান হয় যে, ইয়াবার চালানসমূহের বিশাল অংশ টেকনাফ সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ করে। অথচ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের কারণে বর্তমানে দেশের আইন রক্ষাকারী বাহিনীর বিশাল অংশ টেকনাফ সীমান্তে বিদ্যমান। এ সত্ত্বেও মাদকের এহেন অনুপ্রবেশ কোনক্রমেই গ্রহণযোগ্য নয়। তাছাড়া আইন রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ বলেই প্রতীয়মান হয়। ওই প্রতিবেদনটি নজরে আসার প্রেক্ষিতে রুল দেওয়া হচ্ছে। কেন ইয়াবা ও অপরাপর মাদকদ্রব্য প্রবেশ, পরিবহন ও অবৈধ বাজারজাতকরণ রোধে তাদের ব্যর্থতায় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না।’

আদেশ প্রদানকালে আদালতে উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস।