ক্যালিফোর্নিয়ায় হেপাটাইটিসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৯

আগের সংবাদ

ডিইপিটি ইনোভেশন ল্যাবের উদ্বোধন

পরের সংবাদ

সুন্দরভাবে উপস্থাপনাই কবিতার মুখ্য বিষয়ক নয়- আসাদুজ্জামান নূর

প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ১৯, ২০১৭ , ৩:৪৪ অপরাহ্ণ | আপডেট: অক্টোবর ১৯, ২০১৭, ৩:৪৪ অপরাহ্ণ

সুন্দরভাবে কবিতা উপস্থাপন ও আবেগে বিহবল হওয়াই কবিতার মুখ্য বিষয়ক নয়, বরং কবিতা আমাদের অনেক বেশী দায়িত্ব ও কর্তব্য কাঁধে নেয়ার কথা বলে। আর সেটি হল সমাজ বিনির্মাণ বলে মন্তব্য করেছেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।
গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে জাতীয় প্রায়োগিক আবৃত্তি কর্মশালা এবং বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের বার্ষিক কাউন্সিল উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের উদ্যোগে ১৯-২১ অক্টোবর পর্যন্ত এ কর্মশালা চলবে। আয়োজনে সহযোগিতায় করছে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি।

আলোচনা সভার আগে একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার সামনে আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের কর্মীদের পরিবেশনায় জাতীয় সঙ্গীত শেষে বিপুলসংখ্যক আবৃত্তিকর্মীদের উপস্থিতিতে বেলুন উড়িয়ে কর্মশালার শুভউদ্বোধন করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী। আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেলায়েত হোসেনের সভাপতিত্বে ও বরেণ্য আবৃত্তিজন গোলাম সারোয়ারের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ, বাংলাদেশ পথনাটক পরিষদের সভাপতি মান্নান হীরা, বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশানের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ঝুনা চৌধুরী প্রমুখ। এছাড়া স্বাগত বক্তব্য রাখেন আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আহ্কাম উল্লাহ্।

সংস্কৃতিমন্ত্রী বলেন, যেমনিভাবে ভুল উচ্চারণ কানে লাগে তেমনি ভুল বানানও চোখে লাগে। কণ্ঠ ও উচ্চারণের বাইরে যেটি প্রয়োজন, সেটি হল কবিতার গভীরে প্রবেশ করা। কবিতাকে ধারণ করতে হবে আদর্শের জায়গা থেকে-সেটি আমাদের বড় শক্তি। সব রকম অন্যায়-অত্যাচার বিরুদ্ধে প্রতিবাদমুখর হতে আবৃত্তি শিল্পীরা যে অস্ত্র নিয়ে দাঁড়ায় সেটি হচ্ছে কবিতা।

আসাদুজ্জামান নূর বলেন, বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন নিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছিলেন, এখন চলছে তা বাস্তবায়নের সংগ্রাম এবং তা অব্যাহত রাখতে হবে। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির যে ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে তারই অংশ হিসেবে জাতীয় চিত্রশালা ভবনের উপরিভাগে সংস্কৃতিকর্মীদের আবাসনের সুবিধার্থে ডরমিটরির ব্যবস্থা রাখা হবে।

এসময় তিনি নাটক ও আবৃত্তিকর্মী তথা সংস্কৃতিকর্মীদের প্রতিটি পাড়া-মহল্লা ও প্রতিটি বিদ্যালয়ে গিয়ে নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের সংস্কৃতি চর্চায় উদ্বুদ্ধ ও অনুপ্রাণিত করার আহ্বান জানান।