সনাতন ধর্মলম্বিদের দীপাবলি উৎসব আজ

আগের সংবাদ

উত্তরা থেকে টঙ্গী পর্যন্ত উড়াল সেতু নির্মাণে চুক্তি

পরের সংবাদ

একটি অর্থবহ অন্তভূক্তিমুলক নির্বাচনের দাবি জেপির, সেনা ইসির হাতে

প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ১৯, ২০১৭ , ৭:৩০ অপরাহ্ণ | আপডেট: অক্টোবর ১৯, ২০১৭, ৭:৩০ অপরাহ্ণ

এন রায় রাজা

এন রায় রাজা

সিনিয়র রিপোর্টার

আগামী একাদশ জাতীয় নির্বাচন যাতে একটি অর্থবহ,অন্তভূক্তিমুলক ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হয় সে দাবি জানিয়েছে জাতীয় পার্টি জেপি । আজ নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংলাপে অংশ নিয়ে এ দাবি জানিয়েছে দলটি। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে দলের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর নেতৃত্বে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট প্রতিনিধি অংশ নেয়।
মঞ্জু বলেন, জাতীয় পার্টি জেপি একটি অর্থবহ অন্তভূক্তিমুলক নির্বাচন চায় । সেই নির্বাচনে যাতে জনগনের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটে তাই চাই। তবে রাজনৈতিক দলের একটি বা দুটি অংশ না নিলে এই নির্বাচন অর্থবহ হবে না তা নয়। তিনি বলেন, আমরা বলেছি প্রয়োজন বলে সেনা মোতায়েন করতে পারে ইসি। এই সিদ্ধান্ত ইসি গ্রহণ করবে। সহায়ক সরকার বা অন্যান্য বিষয়গুলো নিয়ে যে কথাবার্তা হয় সেই বিষয়গুলো নিয়ে ইসির কোনো কিছু করার নেই। তাই এগুলো নিয়ে ইসিতে কথা বলিনি।
নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বিভিন্ন দলের ভিন্ন ভিন্ন দাবি সুরাহার জন্য জাতীয় সংলাপ দরকার কীনা এ প্রশ্নের জবাবে মঞ্জু বলেছেন, আমরাও তো জাতীয়, আমরা কি বিজাতি । নির্বাচন ভবনে ইসির সঙ্গে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভা শেষে একথা বলেন তিনি।
তিনি বলেন, আমাদের দলের বক্তব্য সংবিধানের বাইরে যাবে না। আমাদের বক্তব্য বিভিন্ন গণতান্ত্রিক দেশের যেগুলো হয় তার বাইরে যাবে না। তিনি বলেন, কে নির্বাচনে আসল আর কে আসল না সেই বিবেচনায় আমরা নির্বাচনের পক্ষে। দেশে ভাল নির্বাচন হোক,এটা আমরা চাই।
জেপি সেনা মোতায়েনের বিরোধী কীনা এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘দেখেন জাতীয় পার্টি সেনা নিয়োগের বিরোধীই বা হবে কেন, পক্ষেই বা হবে কেন? সেও বাংলাদেশের মানুষ আমরা বাংলাদেশের মানুষ। সেনা বলে কোনো ভিন্ন জাতি না গোষ্ঠি নেই। সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আপনারা কি কি প্রস্তাব দিয়েছেন- এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন- ‘ অনেক অনেক মত বিনিময় করেছি। নির্বাচন কীভাবে সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য করা যায়, কতগুলো রাজনৈতিক দল আছে তাদের সবাই সুষ্ঠু নির্বাচন চান। তবে কীভাবে সুষ্ঠু নির্বাচন করতে হবে সেই সম্পর্কে এদিক সেদিক আছে। আমরা আশা প্রকাশ করে এসেছি এই আলাপ আলোচনার মাধ্যমে এগুলো সুরাহা হবে। সুনির্দিষ্ট কোনো প্রস্তাবনা কমিশনের দিয়েছেন কীনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা মুখে মুখে দিয়েছি। আমরা কোনো বার্গেডিং এজেন্ট নই এবং আমরা মালিকের কাছে আসিনি। আমরা মত বিনিময় করেছি। সেনা মোতায়েন, সহায়ক সরকার, সংসদ ভেঙ্গে দেয়া এমন কথাগুলো আলোচনা হয়েছে।