‌‘ক্রিকেট নয়, মন দাও মাধ্যমিক পরীক্ষায়’

আগের সংবাদ

প্রধান বিচারপতির পর্যবেক্ষণেই আমিত্বের ছাপ

পরের সংবাদ

বার্সেলোনার সুখের সংসার

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৭ , ২:৩৩ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৭, ২:৩৩ অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

এক মাসের মধ্যেই কেমন পাল্টে গেল সবকিছু। নেইমারের চলে যাওয়া, কুতিনহোকে কিনতে না পারা, বার্তেমেউ হটাও আন্দোলন—সবকিছুই এখন দূর অতীতের আবছা স্মৃতি মনে হচ্ছে। ঝড় সামলে স্থির হয়েছে জাহাজ, শান্তি ফিরেছে বার্সেলোনার ডেকে। আরনেস্তো ভালভার্দে জাদুতে আর আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার নেতৃত্বগুণে খেলায়ও ছন্দ ফিরেছে। ছয় ম্যাচে ছয় জয় নিয়ে লা লিগা টেবিলের শীর্ষে আছে কাতালান দৈত্যরা। সব মিলিয়ে লিগে সর্বশেষ ১৩ ম্যাচে অপরাজিত রয়েছেন মেসি-সুয়ারেজরা।

নতুন মৌসুমে বার্সার বদলে যাওয়ার কৃতিত্ব দিতে হবে লিওনেল মেসিকে। দুর্দান্ত ফর্মে আছেন মেসি। এই মৌসুমে ৯ ম্যাচে ১২ গোল করেছেন আর্জেন্টাইন ফুটবল জাদুকর, লা লিগায় করেছেন ৯ গোল। তবে মেসি বাদে আর কেউ গোল করে আলো ছড়াননি বার্সায়। মৌসুমে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩ গোল এসেছে আত্মঘাতী হয়ে অর্থাৎ বিপক্ষ দলের খেলোয়াড়দের পা থেকে। ২ গোল করেছেন ডেনিস সুয়ারেজ ও পাউলিনহো।

ইনিয়েস্তার সেলফিতে সুখী বার্সা পরিবার। ছবি: টুইটারমাঝমাঠে ছন্দ ফিরে পাওয়ার পেছনে মূল কৃতিত্ব ইভান রাকিটিচ ও পাউলিনহোর। লুই এনরিকের সময়ে মূল একাদশে জায়গা হারিয়েছিলেন। ভালভার্দে অবশ্য আস্থা রেখেছেন এই ক্রোয়াট মিডফিল্ডারে। রক্ষণের ফাঁকফোকর দৃঢ়তার সঙ্গে বন্ধ করেছেন রাকিটিচ। আর দলে এসেই বার্সা সমর্থকদের রোষানলে পড়া পাউলিনহো রীতিমতো মুগ্ধ করেছেন সবাইকে। মাঠে বার্সেলোনার শারীরিক উপস্থিতি বেড়েছে, কর্নারসহ স্পট-কিকগুলোতে হেডে গোল করার খেলোয়াড় খুঁজে পেয়েছে বার্সা। কার্লোস পুয়োলের অবসরের পর আবারও সেট পিস থেকে ত্রাস ছড়াচ্ছে কাতালানরা।

নেইমার দল ছাড়ায় সবচেয়ে বেশি লাভ হয়েছে জর্ডি আলবার। রক্ষণ থেকে আক্রমণ ভাগ পর্যন্ত দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন দ্রুতগতির এই ফুলব্যাক। জিরোনার বিপক্ষে তাঁর শট ফেরাতে গিয়েই আত্মঘাতী গোল করে বসেছেন জিরোনা ডিফেন্ডার। ম্যাচ শেষে মুভিস্টারকে জর্ডি আলবা বলেছেন, ‘কোচ নিখুঁতভাবে স্কোয়াড সামলাচ্ছেন। আমরা সবাই খেলার সুযোগ পাচ্ছি।’ নিজের দুর্দান্ত ফর্মের জন্যও কোচকেই ধন্যবাদ দিয়েছেন স্প্যানিশ উইং-ব্যাক, ‘সত্যিটা হলো, কোচ খুবই ভালো কাজ করেছেন। খেলায় উৎসাহ পাচ্ছি, আমার মনে হয় সবাই খেলাটা উপভোগ করতে শুরু করেছে।’

গত মৌসুমের বিপর্যস্ত রক্ষণভাগে এখন পিকে-উমতিতি জুটিকে ধীরস্থির মনে হচ্ছে। মাচেরানোও সুযোগ পেলেই মূল একাদশে খেলার দাবি জানাচ্ছেন। এখন পর্যন্ত মাত্র ২ গোল খেয়েছে কাতালান ক্লাবটি। রক্ষণের দৃঢ়তা আর মেসির অবিশ্বাস্য ফর্মেই শুরুতেই অপ্রতিরোধ্য মনে হচ্ছে বার্সাকে।

এখনো দুটি এল-ক্লাসিকোই বাকি। মৌসুম সম্পর্কে এখনই মন্তব্য করার সময় আসেনি। ইনজুরির কারণে ৪ মাসের জন্য উসমানে ডেম্বেলেও থাকছেন না। তবে এমন ফর্ম ধরে রাখতে পারলে ডেম্বেলেকেও বা কি দরকার? (সূত্র: মার্কা)